বদলে যাওয়া ভোলার বদলে দেয়া বিপ্লব

0
416

নিউজ ডেস্কঃ

ভোলা নিউজ-৩০.১১.১৮

বদলে যাওয়া ভোলার বদলে দেয়া এক নেতার নাম বিপ্লব। প্রথম চ্যালেঞ্জের পর ভোলার স্থায়ী সমস্যা নদী ভাঙ্গন রোধ করে ভোটের রাজনিতিতে কঠিন চ্যালেঞ্জ ছুড়েদেন বিরোধীদের জন্য।
বিপ্লব ভোলার রাজনিতি কঠিন থেকে কঠিন তর করে ফেলেছেন প্রবীন নেতাদের জন্য। অত্যন্ত মেধাবী এ তরুন উদিয়মান প্রথমেই তৃণমূলের রাজনিতিতে প্রবেশ করে ভোলার আওয়ামীলীগের গ্রাম গঞ্জের প্রতিটি কর্মীর সাথে ওয়ানটু ওয়ান সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এর পরেই তিনি সর্বশেষ হয়ে যাওয়া আওয়ামীলীগের কাউন্সিলে জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক হয়ে জানান দেন ভোলার রাজনিতিতে এ তরুণের উত্থানের। অনেক প্রবিন আওয়ামীলীগ তখন তার যোগ্যতা নিয়ে নানা প্রশ্ন করলেও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কোন প্রকার সংঘাত ছাড়াই আওয়ামীলীগের পার্থীদের জিতিয়ে তার রাজনৈতিক দক্ষতার পরিচয় দিতে বেগ পেতে হয়নি এ তারুণ্যের প্রতীকের। এর পরেই তিনি ২ ভাগে বিভক্ত ভোলার আওয়ামীলীগকে গুছানোর কাজে হাত দেন এতেও তিনি সফলতা পেয়েছেন খুবই দ্রুত সময়ের মধ্যে। দল গুছানোর পাসাপাসি গ্রামের কর্মিদের আর্থিক ভাবেও সচ্ছল করতে তিনি নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন এতে গ্রামের আ’লীগ কর্মীরা তার প্রতি আনুগত্যশীল হয়ে পরেন অল্প সময়ের মধ্যে। তার নমনীয়তা ও ভদ্রতায় তিনি জেলার নেতাদের মধ্যমনিতে পরিনত হন। মন্ত্রীপুত্র হিসেবে নয় জেলা নেতা হিসেবেই সকল সিদ্বান্তে তার উপরই নির্ভর করতে থাকেন ভোলার আ’লীগ নেতারা। দিনে দিনে ভোলার আওয়ামীলীগের নির্ভরতার প্রতিক হয়ে উঠেন এই তরুণ প্রজ্ঞাবান নেতা। এর পরেই তিনি দৃষ্টি দেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিকে। ভোলায় ব্যানার ফেষ্টুনে অনেকে দলীয় মনোনয়ন চাইলেও মাঠের রাজনিতিতে দেখাযানি অনেককে। সেই সুজোগই সুচারু রুপে কাজে লাগিয়েছেন মইনুল হোসেন বিপ্লব। ভোলা পৌরসভাসহ প্রতিটি ইউনিয়নের ওয়ার্ড কমিটি গঠন করেছেন ত্যাগী নেতা কর্মীদের নিয়ে। এর পর ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচনীয় কেন্দ্র কমিটি করছেন দলের দুর্দিনের পরিক্ষিত নেতা কর্মীদের নিয়ে। কেন্দ্র কমিটির নামে ভোলা সদরের প্রত্যেকে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মতবিনিময় ও সেরে ফেলছেন এই ক্রিয়েটিভ নেতা। তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে তরুণ এ ক্যারিশমেটিক এর হাতেই কি চলে যাচ্ছে ভোলা সদর আসনের আওয়ামী রাজনিতির জান্ডা…?? ভোলার আওয়ামী ভোটের রাজনিতিতে এক সময়ের টনিক অব হিরো পৌর মেয়র মনিরুজ্জান গত কয়েক বছর ধরেই নিস্ক্রিয়, গরিবের নেতা মজনু মোল্লাহ জেলার বাহিরে, হিরন হেমায়েতদের নিয়েও কথা আছে জনমনে। ও দিকে বাংলার তারুণ্যের প্রতিক আন্দালিভ রহমানের ইমেজ বিএনপির ভোট ব্যাংক, জামায়াতের শক্তিশালী সাংগঠনিক ভীতের বিরুদ্ধধে একক ভাবে লড়াই করে যাওয়া বিপ্লব কি পারবে একাদশ জাতীয় সংসদে নিতে ভোলার সভ্যতার জনক তোফায়েল আহমেদ কে? এই প্রশ্নের উত্তর খুজতে অপেক্ষা করতে হবে ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত।