ভোলায় প্রতারণার নতুন ফাঁদ ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট

0
410

 

এম. রহমান রুবেলঃ

ভোলা নিউজ-২৪.০৫.১৮

ভোলায় প্রতারণার নতুন ফাঁদে পরেছেন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের গ্রাহকরা। লোভনীয় অফার দিয়ে গ্রাহকদেরকে সংযোগ প্রদান করলেও নূন্যতম সেবাও পাচ্ছেন না গ্রাহকরা। ভোলার ভোক্তা অধিকার রক্ষাকারী সংগঠনসহ অধিকার রক্ষকরা অজানা কারণে নীরব ভ‚মিকা রাখায় একচেটিয়াভাবে প্রতারণা করে যাচ্ছেন ইন্টরনেট সার্ভিস প্রভাইডাররা। ভোলায় তালুকদার ভবনের তৃতীয় তলায় অবস্থিত সি.সি নেট নামক ব্রডব্যান্ড সার্ভিস প্রভাইডার গ্রাহকদেরকে জাহাজ গতির ইন্টারনেট সেবার কথা বলে সংযোগ দিলেও কচ্ছপ গতির ইন্টারনেট সেবাও দিচ্ছেন না গ্রাহকদের। এ ব্যাপারে বিটিসিএল এর সাথে যোগাযোগ করে জানা যায় স্বল্প মূল্যে সরকার থেকে ব্যান্ডউইথ কিনে লাইন শেয়ারিং করে অধিক সংখ্যক গ্রাহকদের সংযোগ দেয়ায় কোন গতিই পাচ্ছেন তৃণমূল পর্যায়ের প্রতারিত গ্রাহকরা। সি.সি নেট ব্যবহারকারী গ্রাহকরা অভিযোগ করে বলেন, সংযোগ দেয়ার নাম করে প্রথমে দুই হাজার টাকা এবং চলতি মাসের চার্জ বাবদ ১এমবিপিএস গতির ইন্টারনেটের জন্য আরো এক হাজার টাকা সর্বমোট তিন হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় এবং প্রতিমাসের ইন্টারনেট বিল তো আছেই। পক্ষান্তরে এমবিপিএস স্পিড এর কথা বলে সংযোগ দিলেও কেবিপিএস গতিও পাচ্ছেন না প্রতারিত গ্রাহকরা। এ ব্যাপারে সি.সি নেট ভোলার কর্ণধার জাফর মাহমুদ মুনের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান আমাদের ঢাকা অফিস থেকে ভোলার জেলা প্রশাসক এবং মন্ত্রী মহোদয়ের জন্য দুটি লাইন বরাদ্দ আছে। মাসিক বিলের ক্ষেত্রে সরকারি নীতিমালা এবং ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন অনুসরণের বিষয়ে জানতে চাইলে কর্তাবাবু মুন সাহেব জানান এটা আলু, পটল না যে এখানে সরকারি নীতিমালা অনুসরণ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরদারির অভাবে প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে এদের প্রতারণা। ক্রমশ জিম্মি হচ্ছে ভোলার ইন্টারনেট গ্রাহকরা। এদের জিম্মি দশা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন ভোলার গ্রাহকরা।